• সর্বশেষ আপডেট

    বাচঁতে চায় দশম শ্রেণির স্কুল শিক্ষার্থী মাহিয়া

     


    রাঙ্গুনিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: আমি বাচঁতে চাই, আমাকে বাচাঁতে সাহায্য করুন।  এভাবেই কান্না জড়িত কন্ঠে বাচাঁর আকুতি করছেন স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থী মাহিয়া আক্তার (১৫)। তার দুইটি কিডনি ড্যামেজ হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। আবারও নতুন জীবন নিয়ে বন্ধুদের সাথে স্কুলে ফিরে যেতে চাই সে। মাহিয়া পূর্ব সরফভাটা আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। 

    দুই কিডনি একেবারে ড্যামেজ হয়ে গেছে মাহিয়া আক্তার (১৫) নামের স্কুল শিক্ষার্থীর। সময় যতো যাচ্ছে মৃত্যুর ঝুঁকি ততই বাড়ছে মাহিয়ার। টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেন না তিনি। পরিবার হতদরিদ্র হওয়ায় চিকিৎসার খরচ জোগান দিতে পারছেন না তারা। 

    চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় সরফভাটা ইউনিয়নের কানুর হাট ৯ নম্বর ওয়ার্ডের হাফেজ মোহাম্মদ ইউসুফের কন্যা মাহিয়া আক্তার (১৫)। 

    চিকিৎসক বলেছেন, দ্রুত তার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। কিডনি প্রতিস্থাপন কর‍তে যদিও দেরি হচ্ছে তবে, সময়মত তার কিডনি ডায়ালাইসিস করতে না পারলে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কম। সে ক্ষেত্রে তার কিডনি নিয়মিত ডায়ালাইসিস কিংবা পরিবর্তন করার কোনও বিকল্প নেই। 


    কান্না জড়িত কন্ঠে অসুস্থ মাহিয়ার বড় ভাই মো. শাহাদাত হোসাইন জানান, আমার বোন মাহিয়াকে প্রথমে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে চিকিৎসক নোয়াপাড়া কসমিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরিক্ষা দিলে সেখানে তার কিডনি ড্যামেজ ধরা পড়ে। সেখান থেকে চট্টগ্রাম নগরীর ন্যাশনাল হাসপাতালে নিয়ে গেলে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। আর সেখানে দৈনিক খরচ পড়ে ৮০ হাজার টাকা। সেই টাকা জোগান দিতে না পেরে আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালের লাইফ সাপোর্টে ভর্তি করানো হয়। সেখানেও দৈনিক ৩০ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে প্রতিদিন। 

    তিনি আরও বলেন, পরিবার নিয়ে খুবই কষ্টে রয়েছি বাবাও একজন দরিদ্র মানুষ, ছোটখাটো ব্যাবসা করেই সংসার চালাতে হয়। বোনের ব্যায়বহুল খরচ চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। জানিনা কি হবে..? বোনকে বাচাঁতে চাই। ডাক্তার যে পরামর্শ দিয়েছেন তাতে থাকতো কিডনি পরিবর্তন করা দূরের কথা বরং কিডনি ডায়ালাইসিস করার সামর্থ আমাদের নেই। আমার বোন বাঁচতে চাই। আর্থিক সহযোগিতার জন্য সকলকে পাশে দাড়ানোর অনুরোধ করছি। একটি জীবন বাচাঁতে সহযোগিতা করুন। 

    রাঙ্গুনিয়া উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোহাম্মদ হাসান বলেন, কিডনি ও লিভারসিরোসিস রোগে আক্রান্ত রোগীরা যদি নির্ধারণ ফর্মে সাহায্যের আবেদন করে তবে পরে জেলা কমিটি কর্তৃক অনুমোদিত হলে সহযোগিতা করা হবে।

    মাহিয়ার চিকিৎসার জন্য সমাজের হৃদয়বান ব্যক্তিবর্গ এবং প্রবাসীরা সরাসরি যোগাযোগ করতে ও আর্থিক সহযোগিতা পাঠাতে চাইলে:

    ০১৮৭১৪৪০৪০১ (বিকাশ ও নগদ)
    ০১৮৩৮৭৩৪৭৩২ (বিকাশ
    প্রকাশিত বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad