• সর্বশেষ আপডেট

    কাপ্তাই সড়কের দু'পাশে ঝুঁকিপূর্ণ মরা গাছ, টনক নড়ছে না সওজের

     

    জাহেদুল ইসলাম আরিফঃ চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় কাপ্তাই সড়কের দুপাশে একাধিক মরা গাছের ডালপালা ভেঙে সড়কে পড়ে প্রাণহানির ঝুঁকি দেখা দিয়েছে। এতে প্রাণহানি ও হতাহত হয়েছে অনেক। এরমধ্যে কালবৈশাখীর তাণ্ডবে  সড়কের বিভিন্ন স্থানে গাছ উপড়ে পড়ে আহতের ঘটনাও ঘটেছে। কাপ্তাই রাস্তায় বিভিন্ন যানবাহনে প্রতিদিন দুলাখ মানুষ চলাচল করে। ডাল ভেঙে পড়ছে সড়কে ও যাত্রীবাহী যানবাহনে। এরপরও টনক নড়ছে না সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ)। জানা যায়, কাপ্তাই সড়কের রাঙ্গুনিয়া অংশে ঝুঁকিপূর্ণ গাছ রয়েছে ৩৫টিরও বেশি। প্রতিনিয়ত সড়কে ভেঙে পড়ছে গাছ। এর আগে বড় একটি গাছ ভেঙে পড়ে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছিলো অর্ধশতাধিক যাত্রী বহনকারী একটি বাস। ডজনের পর ডজন গাছ ভেঙে পড়লেও অপসারণ করা হবে বলেই দায় সারছেন সওজ।এছাড়াও চলতি বছরে কিছু স্থানে গাছ ভেঙে পড়ে গাড়ি চাপা পড়েছে একাধিক। হালকা ঝড়ো হাওয়ায় সড়কে হুটহাট করে পড়ে এসব গাছ। ঝুঁকিপূর্ণ এসব গাছ ও ডালপালা কেটে ফেলার দাবি জানিয়েছে পথচারী ও স্থানীয়রা। সরেজমিনে দেখা গেছে, কাপ্তাই সড়কের শান্তিরহাট, বুড়ির দোকান, গোডাউন, ইছাখালী, মুহাম্মদপুর, চন্দ্রঘোনাসহ একাধিক রাস্তায় ঝুঁকিপূর্ণ গাছ রয়েছে। এছাড়া কয়েকটি স্পটে সড়কের পাশে রয়েছে কয়েকটি শুকনো মরা গাছ। যা বাস-ট্রাকসহ বড় যানবাহনচালকদের সমস্যায় ফেলছে। জানা গেছে, গত বছরের ৩ অক্টোবর পোমরা বুড়ির দোকান এলাকায় শতবর্ষী গাছ ভেঙে পড়ে। এতে গাছের নিচে চাপা পড়ে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা। ওই ঘটনায় সিএনজি চালক ও যাত্রী আহত হয়েছিল। চলতি বছরেও গাছ ভেঙে পড়ার ঘটনা ঘটেছে ৩০ টিরও বেশি। স্থানীয়দের অভিযোগ, কিছু অসাধু ব্যক্তি রাস্তার পাশের গাছগুলোর ডালপালা কেটে নিয়ে যায়। সেই গাছগুলোর গোড়ার অংশ আংশিক কেটে দেয়া হয়। এতে করে গাছগুলো ধীরে ধীরে মরে যায়। সড়কের পাশে থাকা অনেক গাছের শেকড় এভাবে কাটা পড়ে। গাছের গোড়ার মাটি সরে যাওয়ায় নড়বড়েও হয়ে পড়ে। এক সময় সুযোগ বুঝে মরা গাছগুলোও নিয়ে যায় তারা। এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগের রাঙ্গুনিয়া-কাপ্তাই অংশের ওয়ার্ক সুপারভাইজার রাসেল দেওয়ান জানান, ঝুঁকিপূর্ণ গাছগুলোর ব্যাপারে ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গাছগুলো কাটা হবে।
    প্রকাশিত সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad