• সর্বশেষ আপডেট

    ডুবতে বসা শ্রীলঙ্কা: ভাসালেন ভানু রাজাপাকসে

     

    কুসাল মেন্ডিস আর নিশাঙ্কার ওপেনিং জুটির দৈর্ঘ্য মাত্র ২ রানের। তারমধ্যে টপ অর্ডার ব্যাটার কুসাল ফিরেছেন শূন্য রানে। 

    এরপর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে নিয়ে টাল সামলানোর চেষ্টা করেন নিশাঙ্কা। তবে সেই জুটিও আগায়নি ২১ রানের বেশি।গুনাাথিলাকা আর ডি সিলভা জুটির স্থায়িত্ব আরও কম, ১১ বলে ১৩ রানের পার্টনারশিপ তাদের। এমন বিপর্যয়ের দিনে প্রথম দশওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ছিল ৬৭/৫। মনে হচ্ছিল এই দল শতক পেরুনোর আগেই দুমড়ে মুচড়ে যাবে। 

    পাকিস্তানি বোলারদের আগ্রাসনও সেই বার্তা দিয়েছিল।তবে ভোরের সূর্য সব সময় ঠিক কথা বলে না। তা প্রমাণ করেছে লঙ্কানরা।অধিনায়ক দাসুন শানাকা সাজঘরে ফেরার পর শক্ত হাতে হাল ধরেন ভানুকা রাজাপাকসে। 

    ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে নিয়ে তিনি গড়েন শ্রীলঙ্কার ইনিংসের সবচেয়ে বড় জুটি, ৩৬ বলে তাদের ঝড়ো পার্টনারশিপের দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় ৫৮ রানে।হাসারাঙ্গা ফিরলেও হাল ছাড়েননি ভানুকা রাজাপাকসে। তিনি চামিকা করুণারত্নেকে সাথে নিয়ে হয়ে ওঠেন আরও শক্তিশালী, চাপকে তুড়িতে উড়িয়ে এই জুটি তোলে ৫৪ রান, মাত্র ৩১ বলে।  

    এভাবে ডুবতে বসা শ্রীলঙ্কা এশিয়া কাপের ফাইনালে পায় ১৭০ রানের বড় সংগ্রহ। যার মধ্যে ভানুকা রাজাপাকসেই করেছেন ৭১ রান, এই রান করতে তিনি বল খেলেছেন মাত্র ৪৫টা।
    শ্রীলঙ্কায় চলছে চরম অর্থনৈতিক সঙ্কট, সেকারণেই আয়োজক হয়েও এবার নিজের দেশে এই আসর আয়োজন করতে পারেনি ভানুকারা।


    বিক্ষোভ আর বিদ্রোহের দেশ থেকে খেলা নিয়ে যাওয়া হয় সংযুক্ত আরব আমিরাতে। খাদ্য, ওষুধ আর জ্বালানি সঙ্কটে ভোগা ভানুকারা মরুর মাটিতেই বুনে দিলেন লঙ্কান সবুজ, আর তাতেই ফলালেন সোনার ফসল। মাহিন্দা রাজাপাকসে আর গোতাবায়া রাজাপাকসে মিলে যে দেশটাকে ডুবিয়েছেন অর্থনীতিতে, করেছেন দেউলিয়া। 

    সেই দেশটাকে খেলার মাঠে জিতিয়ে দিলেন আরেক রাজাপাকসে তার নাম ভানুকা! তার এই (ভানু) সূর্যের হাসি ফোঁটানো জয় নিশ্চয়ই শ্রীলঙ্কার সাধারন মানুষদের একটু স্বস্তি দেবে। তারা হাঁফ ছেড়ে বলতেই পারেন, আমাদের দুদণ্ড শান্তি দিয়েছে ভানুকা, ভানুকা রাজাপাকসে।

    প্রকাশিত সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad