• সর্বশেষ আপডেট

    আপীল বোর্ডের সিদ্ধন্তে কোন করদাতা অসন্তুষ্ট হলে তাও বিবেচনা করা হবে

     

    চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, নগরীর গৃহকর নিয়ে
    হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার লক্ষ্যে একটি মহল প্রপাগন্ডা ছড়াচ্ছে। আমার নির্বাচনী ইশতেহারের
    ঘোষণা অনুযায়ী কোন প্রকার পৌরকর বৃদ্ধি করা হয়নি। তবে ২০১৭ সালের ধার্য্যকৃত করের যেসব
    অসংগতি আছে তা দূর করার জন্য আপীল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। আপীলের সম্মুখীন হওয়া ছাড়া
    এই অসংগতী দূর করার কোন সুযোগ নেই।

     আজ বুধবার সকালে নগর বাইশ মহলা কমিটির
    নেতৃবৃন্দ সিটি মেয়রের সাথে তাঁর টাইগারপাসস্থ অফিসে সাক্ষাত করতে এলে তিনি একথা বলেন।
    নগর বাইশ মহল্লা কমিটির সভাপতি মো. ইউসুফ সর্দ্দারের নেতৃত্বে সে সময় আরো উপস্থিত
    ছিলেন-কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি শওকত হোসাইন কামরু, সাবেক কমিশনার আলী বক্স,
    সালাউদ্দিন ইবনে আহমেদ, মোহাম্মদ তারেক ও জাহিদ হোসেন প্রমুখ।

    মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, পৌরকর সহনীয় পর্যায়ে আনার জন্য ২০১৭ সালে মূল্যায়ণকৃত
    গৃহকর নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনের লক্ষ্যে পূর্বের বকেয়া পরিশোধ করে আপীলের মাধ্যমে তা নিরসন
    করার জন্য নগরবাসীকে অবহিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, গৃহকর মূল্যায়ন ও আপীল বিষয়ে নগরবাসীর
    বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে আপীল বা কর পরিশোধ করতে গিয়ে চসিকের কোন কর্মকর্তা-
    কর্মচারী দ্বারা হয়রানির শিকার হন সেক্ষেত্রে আমার পিএস অথবা রাজস্ব কর্মকর্তাকে অবহিত করার
    জন্য স্থানীয় সকল পত্রিকায় যোগাযোগের নম্বরসহ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়েছে। নগরবাসীর কোন
    অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। মেয়র পুন:উল্লেখ করে
    বলেন, আপীল বোর্ডের সিদ্ধন্তে কোন করদাতা অসন্তুষ্ট হলে তাও বিবেচনা করা হবে। এবিষয়ে কোন
    প্রকার বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্যও মেয়র নগরবাসীর প্রতি আহান জানান।

    তিনি নগরীর যানবাহন ও জনসাধারণের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা দূর করতে চলমান অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
    কার্যক্রমে বাইশ মহল্লা সর্দ্দার কমিটির সহযোগিতা কামনা করে বলেন, চসিকের দুই জন
    ম্যাজিস্ট্রেট ও পরিচ্ছন্ন বিভাগ প্রতিদিন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে যাচ্ছে। উচ্ছেদকৃত স্থান
    যাতে পুনরায় দখল করতে না পরে সে ব্যাপারে আপনারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারনে।
    নগর বাইশ মহল্লা সর্দ্দার কমিটির সভাপতি ইউসুফ সর্দ্দার বলেন, আপীল কার্যক্রমে আমরা সন্তোষ
    প্রকাশ করছি। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের কাছে অনিয়মের অভিযোগ আসছে সে সকল
    অনিয়ম দূর করতে হবে। তিনি সিটি কর্পোরেশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এ বিষয়ে
    আরো সতর্ক হওয়ার জন্য মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

    প্রকাশিত বুধবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad