Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    ময়মনসিংহে ইউপি চেয়ারম্যান কুপিয়ে হত্যা করেছে এক বৃদ্ধাকে


    ময়মনসিংহ থেকে ফজলুল হক ভুঁইয়াঃ- ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে  বালু নেওয়াকে কেন্দ্র করে উপজেলার ১২নং স্বদেশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার সহযোগিদের নিয়ে আঃ কাদির মন্ডল (৬৫) নামে এক বৃদ্ধাকে নির্মমভাবে খুন করেছে। নিহত ব্যক্তি গাজীপুর গ্রামের হাজী আয়ূূব আলীর পুত্র বলে জানা গেছে। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার গাজীপুর গ্রামে নিহতের নিজ বাড়ীর সামনে এ খুনের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন হালুয়াঘাট সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো. খলিলুর রহমান ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাহমুদুল হাসান।

    স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, ঘটনার দিন বিকেলে কংশ নদী থেকে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে উত্তোলিত বালু আনতে গাড়ি পাঠায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ। উত্তোলিত বালুগুলো নিহত বৃদ্ধার নিজস্ব জমিতে থাকার কারণে  বাধা প্রদান করেন নিহত আঃ কাদির ও তার স্বজনরা। এ খবর শুনে ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁর  দলবল নিয়ে দেশীয় সশশ্র হয়ে  হামলা চালায়। হামলায় বাধা প্রদানকালে আঃ কাদির কে ঘটনাস্থলে রাম দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে পার্শবর্তী উপজেলা ফুলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে রাস্তায় মৃত্যুবরণ করেন।

    এ ঘটনায় নিহতের ভাই কুদ্দুস মন্ডল সাংবাদিকদের জানান, বাড়ির কাছে নাতনী নিয়ে বসা ছিলেন তিনি। হঠাৎ স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার তার সহযোগিরা সশস্র হামলা চালিয়ে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে বৃদ্ধা আব্দুল কাদিরকে। 

    এ বিষয়ে স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ এ প্রতিবেদকে মুঠোফোনে বলেন, তিনি মারধর করেনি। হত্যাকান্ডের বিষয়ে তিনি অবগত নন। একটি মহল তাকে ঘটিনাটির সাথে জড়িত করতে উঠে পড়ে লেগেছে বলে জানান।

    এ বিষয়ে হালুয়াঘাট থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা মো. মাহমুদল হাসান মুঠোফোনে জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছেন। এ ঘটনায় অত্র থানায় হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

    প্রকাশিত: বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

    Post Top Ad