Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    আলোচিত পর্দা কেলেঙ্কারি মামলার আসামিকে জামিন দিল হাইকোর্ট।


    ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আলোচিত ‘পর্দা কেলেঙ্কারির ঘটনায় করা মামলায় দুই আসামিকে শর্তসাপেক্ষে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ রোববার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ আসামিদের জামিন দেন।

    আসামিরা হলেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান অনিক ট্রেডার্সের স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুল্লাহ আল মামুন ও জাতীয় বক্ষব্যাধী হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুন্সি সাজ্জাদ হোসেন। এ দুইজন বিচারিক আদালতকে আত্মসমর্পণের পর ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন।

    আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ এম আমিন উদ্দিন ও আইনজীবী মো.সাইফুল্লাহ মামুন। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শাহীন আহমেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

    পরে একেএম আমিন উদ্দিন মানিক সাংবাদিকদের বলেন, ‘আসামিদের বিলের টাকা উত্তোলন না করার শর্তে নিয়মিত কোর্ট খোলার এক সপ্তাহ পর্যন্ত তাদের জামিন মঞ্জুর করেছেন হাইকোর্ট। ফলে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা বিলের টাকা দাবি করতে পারবে না।থ

    এর আগে ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী বাদী হয়ে ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। ফরিদপুরের দুদকের সহকারী পরিচালক কমলেশ মণ্ডল মামলাটি রেকর্ড করেন।

    মামলার অন্য আসামিরা হলেন মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মুন্সি ফররুখ আহমেদ, ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক (দন্ত বিভাগ) ডা. গণপতি বিশ্বাস শুভ, সাবেক জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি) ডা. মিনাক্ষী চাকমা ও সাবেক প্যাথোলজিস্ট ডা. এএইচএম নুরুল ইসলাম।


    আসামিদের বিরুদ্ধে অসৎ উদ্দেশ্যে ক্ষমতার অপব্যবহার করে পরস্পর যোগসাজশে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জন্য অপ্রয়োজনীয় ও অবৈধভাবে বেশি দামে যন্ত্রপাতি ক্রয়ের মাধ্যমে ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগে দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনে এ মামলা করা হয়।


    হাইকোর্টে জামিন পাওয়া দুই আসামি বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের পর গত ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন।

    প্রকাশিত: রবিবার, ২১ জুন, ২০২০

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad