• সর্বশেষ আপডেট

    গাজায় ইসরায়েলি হামলা থেকে পালানোর পথ রাফাহ ক্রসিং বন্ধ

      

    গাজায় ইসরায়েলের চলমান হামলা থেকে পালানোর একমাত্র পথ রাফাহ ক্রসিং বন্ধ হয়ে গেছে। গাজা উপত্যকা ও মিসরের মধ্যকার এই সীমান্তপথ বুধবার বন্ধ হয়ে যায় বলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের উপমুখপাত্র বেদান্ত প্যাটেল জানান।তবে নিরাপত্তাজনিত কারণ স্পষ্ট করেননি তিনি। সীমান্তপথটি খোলা নিয়ে মিসর ও ইসরায়েলের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র কাজ করছে বলে তিনি জানান। 

    বুধবার নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘রাফাহ ক্রসিং আজ থেকে বন্ধ রয়েছে। ধারণা করছি, নিরাপত্তাজনিত কারণেই এমন হয়েছে।’রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, রাফাহ ক্রসিং কবে নাগাদ খুলতে পারে, তার কোনো ইঙ্গিত বেদান্ত প্যাটেল দেননি। মিসর থেকেও এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো বক্তব্য বা বিবৃতি আসেনি।রাফাহ ক্রসিং নিয়ন্ত্রণ করে মিসর। গাজায় প্রবেশ বা বের হওয়ার এটিই একমাত্র পথ, যা ইসরায়েল নিয়ন্ত্রণ করে না।

     গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামাসের আক্রমণের পর প্রতিশোধ হিসেবে গাজায় নির্বিচারে বোমা হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েলি বাহিনী। গাজার অধিবাসীদের জন্য সাহায্য পৌঁছানোর এটিই একমাত্র পথ।রাফাহগামী একটি অ্যাম্বুলেন্সে ইসরায়েলি হামলার পর গত শনিবার ও রোববার এই ক্রসিং দিয়ে বিদেশি পাসপোর্টধারীদের গাজা থেকে সরিয়ে নেওয়া স্থগিত করা হয়। তবে গত সোম ও মঙ্গলবার ক্রসিংটি আবার খোলা ছিল।বেদান্ত প্যাটেল আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র আশা করে যে নিয়মিত বিরতিতে রাফাহ ক্রসিং খুলে দেওয়া হবে, যাতে গাজায় ত্রাণসামগ্রী পৌঁছাতে পারে এবং বিদেশি নাগরিকেরাও প্রস্থান করতে পারে। গত সপ্তাহে বিদেশি পাসপোর্টধারীরা রাফাহ হয়ে যাত্রা শুরু করার পর থেকে এখন পর্যন্ত চার শতাধিক মার্কিন নাগরিক, তাঁদের পরিবারের সদস্য এবং গাজার স্থায়ী বাসিন্দারা এই অবরুদ্ধ উপত্যকা ছেড়ে গেছে।

    ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী সংগঠন হামাস ৭ অক্টোবরে ইসরায়েলে নজিরবিহীন হামলা চালায়। এতে ১ হাজার ৪০৫ জন নিহত হয়। জিম্মি করা হয় ২৪০ জনকে। এর জবাবে ওই দিনই গাজায় হামলা শুরু করে ইসরায়েল। এতে ফিলিস্তিনি নিহত সাড়ে ১০ হাজার ছাড়িয়েছে।গত সোমবার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, ২৪০ জিম্মিকে মুক্তি না দেওয়া পর্যন্ত গাজায় কোনো যুদ্ধবিরতি নয় এবং উপত্যকায় কোনো জ্বালানি সরবরাহ করতে দেবে না তারা। এমনকি যুদ্ধ শেষে গাজার নিয়ন্ত্রণ ইসরায়েল নেবে বলেও তিনি জানান।এ প্রসঙ্গে গত মঙ্গলবার ওয়াশিংটন বলেছে, গাজাকে দীর্ঘ সময় ধরে ইসরায়েলের দখল করে রাখার বিষয়টি তারা সমর্থন করছে না। গাজায় সহায়তা পৌঁছানো অব্যাহত রাখতে ইসরায়েলকে মানবিক বিরতিতে সম্মত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ওয়াশিংটন।
    প্রকাশিত বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২৩