• সর্বশেষ আপডেট

    এবার ১৫ বছর পর মাস্টার প্ল্যান তৈরি করছে সিডিএ

     

    চট্টগ্রাম: পরিকল্পিত নগর গড়তে ১৫ বছর পর আবারও মাস্টার প্ল্যান তৈরি করছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। 

    এ প্ল্যান বাস্তবায়ন হলে আধুনিক নগরীর সুফল মিলবে বলে মনে করছেন সংস্থাটি।যদিও ১৯৯৫ সাল ও ২০০৮ সালে তৈরি হওয়া প্ল্যানের শতভাগ বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি বলে দাবি করেন খোদ সংস্থাটির চেয়ারম্যান।  মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে ড্রোন উড়িয়ে সিডিএ’র পক্ষ থেকে এ মাস্টার প্ল্যান তৈরি উদ্বোধন করেন সিডিএ চেয়ারম্যান এম. জহরিুল আলম দোভাষ।উদ্বোধন শেষে সিডিএ চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। 

     এসময় তিনি বলেন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ১৯৯৫ সালে মাস্টারপ্ল্যান করে।পরবর্তীতে ২০০৮ সালে ডিটেইল এরিয়া প্ল্যান তৈরি করা হয়। বর্তমানে সরকারের রূপকল্প ২০৪১ এর সঙ্গে মিল রেখে ‘চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকার মাষ্টারপ্ল্যান (২০২০-২০৪১) প্রণয়ন’ র্শীষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। দোভাষ বলেন, এবার আমরা আধুনিক পদ্ধতিতে সার্ভে করছি। যাতে ভুলভ্রান্তি কম হয়। ড্রোনের মাধ্যমে করলে একটি ডকুমেন্ট আকারে সংরক্ষণ করা যায়। 

    আগে যখন সার্ভে করা হতো তা ফিজিক্যালি ঘুরে ঘুরে করা হতো। এতে একজন যে রিপোর্ট দিত, তা ভুল হলেও আরেকজন সম্মতি দিয়ে দিত।  আগের মাস্টার প্ল্যানগুলো কতটুকু বাস্তবায়ন হয়েছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোনো মাস্টার প্ল্যান পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয় না। তবে একটি প্ল্যান তৈরি থাকলে তা দিয়ে পরিকল্পিত নগরায়ন করা যায়।  মাস্টার প্ল্যান তৈরির এ প্রকল্প চলবে আগামী দুই বছর।

     সব কিছু ঠিক থাকলে ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে একটি পুর্ণাঙ্গ প্ল্যান পাওয়া যাবে। তবে নগরের সকল স্টেকহোল্ডরদের সঙ্গে আলাপ করে বাস্তবায়নযোগ্য মাস্টার প্ল্যান উপহার দিতে চান সিডিএ চেয়ারম্যান।  প্রকল্প পরিচালক ও উপ-প্রধান নগরপরিকল্পনাবিদ মো. আবু ঈসা আনছারী বলেন,  প্রকল্পের উদ্দেশ্য হলো চট্টগ্রাম মেট্রোপলটিন মাষ্টার প্ল্যানের উন্নয়নের জন্য একটি কৌশলগত কাঠামো নীতি ও গাইডলাইনগুলি পর্যালোচনা করা এবং ২০২০-৪১ সালের জন্য একটি নতুন মাষ্টার প্ল্যান প্রস্তুতকরা। ইতোমধ্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও বাংলাদশে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ মাস্টারপ্ল্যানভূক্ত এলাকায় ড্রোন উড্ডয়নরে অনুমতি প্রদান করেছেন।

     এ পরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য ফিজিক্যাল ফিচার সার্ভে’র তথ্য ও উপাত্তের সঠিকতা নিশ্চিত করণের উদ্দেশ্যে ড্রোন সার্ভে মাসব্যাপি সম্পন্ন হবে। এ কাজের জন্য কারিগরি সহায়তা প্রদান করবে ‘ডেটেক্স।
    প্রকাশিত: মঙ্গলবার ১৯ এপ্রিল ২০২২

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad