Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    বিশ্ব কলোনী কিশোর গ্যাংয়ের অপতৎপরতায় অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ।


    চট্টগ্রাম নগরীর আকবরশাহ থানাধিন বিশ্ব কলোনী এলাকা প্রতিটি ব্লকে বেড়েছে ‘কিশোর গ্যাং’-এর অপতৎপরতা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এসব কিশোর গ্যাং এর বখটেরা। নির্বাচনের আগে পুলিশি অভিযানের কারণে কিছুটা কমলেও নির্বাচন শেষ হওয়ার পর চক্র গুলো আবারও সক্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশ্ব কলোনীর বিভিন্ন স্থানে চক্রের সদস্যরা নানা অপকর্ম করছে। মাদক ব্যবসা-চাঁদাবাজিসহ আধিপত্য বিস্তার ও এলাকা নিয়ন্ত্রণে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের ব্যবহার করা হচ্ছে। কথা কথায় কক্টেল ফাটিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে রাখা ইভটিজিং করা থেকে শুরু করে সবিই করছে তারা কেউ বাধা দিলে তাদের পরিবারের উপর করছে হামলা অভিযোগ রয়েছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে বড় ভাই তথা দলীয় আশ্রয়-প্রশ্রয়ের কারণে এসব কিশোর গ্যাং এর সদস্যরা এত বেপরোয়া।

    আকবরশাহ থানা সংলগ্ন বিশ্বকলোনী আই ব্লকের আলহেরা মসজিদের পিছনের গলির একজন বাসিন্দা নিজের খোভ সামাজিক যোগাযগ মাধ্যমে লিখেছেন, এই এলাকায় থেকে বিন্দুমাত্র শান্তি পাচ্ছিনা। দিনে বহিরাগত বাচ্চারা চকলেট বোমা ফুটিয়ে যায় যেখানে আমার বাবা একজন অসুস্থ রোগী, আর আমি প্যানিক আ্যটাক এর রোগী।তাদের মানা করা সত্ত্বেও বারবার এরিয়ায় চকলেট বোমা ফুটিয়ে যায়। বড়রা কোন পদক্ষেপ নেয়না রাতের বেলা বাইরের কিছু ছেলে এসে বিনা কারণে আড্ডা, চিল্লাচিল্লি দৌড়াদৌড়ি করতে থাকে। যার কারণে পড়াশোনা করতে পারিনা ঠিকমত। এখানে অনেকে মন্তব্য করে অভিযোগ করেন তাদের নিজ নিজ এলাকায় একই অবস্থা কিশোর গ্যাং এর অত্যাচারে অতিষ্ঠ তারা অনেকে আবার এর জন্য দোষছেন প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তাকে একজন প্রশাসনকে অভিযোগ করে বনেন, থানার পাশে কিশোর গ্যাং বখাটে ছেলেদের অপতৎপরতা থাকলেও প্রশাসন এসেব দেখেও নিশ্চুপ ফলে তারা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

    তবে পুলিশ বলছে প্রতিনিয়ত কিশোর গ্যাং অপতৎপরত মাদক বিক্রি ও সেবন রোধে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আটক করা হচ্ছে অপরাধের সাথে জড়িত কিশোর সদস্যদের।

    চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের পাহাড়তলি জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার মোঃ আরিফ হোসেন জানান, এসব কিশোর গ্যাং এর অপতৎপরতার বিরুদ্ধে প্রতিদিন অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে, গতকাল শহিদ লেইন থেকে সিডিএ এক নাম্বার পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করে ৫০ জনের অধিক কিশোর গ্যাং এর সদস্যকে ও মাদক ব্যবসায়িকে আটক করা হয়েছে। অভিযান চলমান থাকবে যেখানে কিশোর গ্যাং এর অপতৎপরতা থাকবে সেখানে আমরা অভিযান পরিচালনা করবো।

    তবে শুধু বিশ্ব কলনী নয় চট্টগ্রাম নগরীর অলিগলির সিসিটিভি ক্যামেরাগুলোতে ধরা পড়ছে একের পএক কিশোর গ্যাংয়ের ত্রাসের রাজত্ব। কোথাও প্রকাশ্যে মারামারি করছে, কোথাও প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে অংশ নিচ্ছে হানাহানিতে।আবার কোথাও টার্গেট কিলিংয়ে তারা ব্যবহৃত হচ্ছে। নগরীতে এ ধরনের ২০টির বেশি কিশোর গ্রুপের আধিপত্য রয়েছে। গত কয়েক মাসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিশেষ অভিযানে গ্যাংভুক্ত শতাধিক কিশোরকে আটক করা হয়েছে। নতুন নতুন গ্রুপ, উপ-গ্রুপ তৈরি হচ্ছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনের আগে পুলিশি তৎপরতায় কিশোর গ্যাংয়ের অপতৎপরতা কমে গিয়েছিল। নির্বাচনের পরে পুলিশি তৎপরতা একটু কমে এলেও আবার বেড়েছে এ গ্রুপের অপতৎরতা। মেয়েদের ভ্যানিটি ব্যাগ ও মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের অধিকাংশ ঘটনায় কিশোর অপরাধীরা জড়িত। নিজ এলাকার মধ্যেই এরা নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড চালিয়ে থাকে।


    প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার ২৫ মার্চ, ২০২১

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad