Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘনে দুই মেয়র প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ


    মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, গাজীপুরঃ- শ্রীপুর পৌরসভা নির্বাচনে নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘনে দুই মেয়র প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ করেছেন নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী মোঃইস্তাফিজুল হক আকন্দ।  নোটিশে নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

    বুধবার (২৩ডিসেম্বর)  বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে তাদের পাঠানো নোটিশে বলা হয়েছে ওইদিন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট কাজী খান এবং স্বতন্ত্র্য প্রার্থী শাহ আলম উপজেলা পরিষদ চত্বরে সমর্থকদের নিয়ে শোডাউন ও সভা করেছেন। 
    এতে নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘন করা হয়েছে। নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘনের দায়ে তাদের বিরুদ্ধে কেন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তা ২৪ ঘন্টার মধ্যে জানাতে বলা হয়েছে।  

    গাজীপুরের শ্রীপুর পৌর নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী মোঃ ইস্তাফিজুল হক আকন্দ জানান, বুধবার বিএনপির পক্ষে শ্রীপুর পৌর বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী খান মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এছাড়াও পূর্বে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া বিএনপি মনোনীত শ্রীপুর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত শহিদুল্লাহ শহিদের বড় ভাই শাহ আলম স্বতন্ত্র্য প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। 
    এ নিয়ে মেয়র পদে মোট প্রার্থী চারজন। তারা হলেন আওয়ামীলীগ মনোনীত গাজীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনিছুর রহমান আনিছ, বিএনপি মনোনীত অ্যাডভোকেট কাজী খান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত রফিক মোমতাজী এবং শ্রীপুর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত শহিদুল্লাহ শহিদের বড় ভাই স্বতন্ত্র্য প্রার্থী শাহ আলম।
    নির্বাচনে সাধারণ কাউন্সিলর হিসেবে ৪৯ এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর হিসেবে ১১ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। 

    প্রসঙ্গত, এই পৌর নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো চলতি বছরের ২৮ ডিসেম্বর। কিন্তু বিএনপি'র মনোনীত দলীয় মেয়র প্রার্থী শ্রীপুর পৌর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক শহিদুল্লাহ শহিদ ৯ ডিসেম্বর মারা যান। ওই পদে নির্বাচন স্থগিত করে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও গাজীপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কাজী মোঃ ইস্তাফিজুল হক আকন্দ।

    পরে ১৪ ডিসেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় নির্বাচনের নতুন তারিখ ঘোষনা করা হয়। স্থগিত হওয়া পদে (মেয়র) মনোনয়ন দাখিলের শেষ তারিখ ২৩ ডিসেম্বর। মনোনয়ন বাছাইয়ের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৩১ ডিসেম্বর এবং ২০২১ সালের ১৬ জানুয়ারি ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। 

    সকাল ৮ টা হতে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ চলবে। সাধারণ আসনের কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে নতুন করে মনোনয়ন জমা দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ভোট গ্রহণ হবে ইলেকট্রনিক (ইভিএম) ভোটিং মেশিনের মাধ্যমে।

    প্রকাশিত: বুধবার, ২৩ ডিসেমম্বর, ২০২০

    Post Top Ad