Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    অভিযোগের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করলেন ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইউসুফ খান পাঠান

    মোঃ ফজলল হক ভুঁইয়া, ময়মনসিংহঃ- ময়মনসিংহের জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব, অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান অভিযোগের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করলেন ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে।

    উপস্থিত থেকে জানি, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান তার বিরুদ্ধে পরিষদের ১৭ জন সদস্য গত দুদিন অাগে যে অভিযোগ করেছেন তা মিথ্যা বলে অভিহিত করেছেন।

    এরই ধারাবাহিতায় অাজ ১২.০৯.২০২০ ইং রোজঃ শনিবার বেলা ১২ টায় ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে অভিযোগের প্রতিবাদে সংবাদ সন্মেলনে অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান একথা বলেন।

    অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান বলেন জেলা পরিষদের প্রায় ৬শ প্রকল্প অাছে। অামি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলছি কোথাও কোন দূর্নীতি হয়নি। কেউ তা প্রমান করতে পারবে না। তিনি অারো বলেন, গত জেলা পরিষদ নির্বাচনে অামি সবচেয়ে বেশী ভোটে নির্বাচিত হয়েছি।

    মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অামাকে মনোনয়ন দিয়েছে। এরপর থেকেই অামার বিরুদ্ধে একটি চক্র নানা ষড়যন্ত্র করে আসছে। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান বলেন, ময়মনসিংহের ব্রিজ সংলগ্ন পাটগুদাম মন্দির ভাঙ্গা নিয়ে একটি মহল নোংরা রাজনীতি করছে।

    উনি বলেন ঐ মন্দিরে অামি ২লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছি। একটি প্রকল্পে বারবার অর্থ বরাদ্দ নিয়ে বিরোধীদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, জেলা পরিষদের ডাকবাংলা ৪২শতাংস জায়গার উপর নির্মিত। দীর্ঘদিনের ডাকবাংলা নির্মানে ৪৫কোটি দরকার।

    উনি বলেন অামার অাগের চেয়ারম্যান এড জহিরুল হক খোকা ৩০কোটি টাকা রেখেছেন। অামার অামলে ১২ কোটি টাকা বরাদ্ধ রাখা হয়েছে। এখানে সচ্ছতার কোন অভাব নেই।

    মুজিব বর্ষের জন্য মেম্বারদের একটি প্রকল্প তৈরীর জন্য বলি। উনারা ৭কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহন করে। কেক কাটা অনুষ্ঠানের জন্য ২লাখ টাকা করে প্রতিজন চায়। তাদের ১লাখ টাকা করে বরাদ্দ দেয়া হয়।

    ১৫ ই অাগষ্ট উপলক্ষে জেলা পরিষদের উদ্যোগে অনুষ্ঠান করা হয়। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জওয়াবে স্বজন প্রীতির অভিযোগকে মিথ্যা বলে অভিহিত করনে। এখানে লটারির মাধ্যমে টেন্ডারের কাজ বন্টন করা হয় বলে অবহিত করেন। কোন ধরনের গোপনের কোন কিছু নেই।

    উনি বলেন, ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলায় একটি দুতলা মার্কেট নির্মান করে ২৫ লক্ষ টাকা সাশ্রয় করে জেলা পরিষদের ফান্ডে জমা করেছি।
    এতে অাজ অামি সন্তুষ্ট। আজ আমি সংবাদ সন্মলেনকে উপলক্ষ করে সাড়ে তিন বছরের উন্নয়ন তুলে ধরতে পেরেছি। অামার জীবনে এটা শ্রেষ্ঠ সময় বলে উল্লেখ করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান।

    প্রকাশিত:  শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

    Post Top Ad