Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    কুয়াকাটায় ভরা মৌসুমে ইলিশ শিকার করতে না দেয়ায় বিক্ষোভে ফেটে পড়ে জেলেরা

    রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া-পটুয়াখালীঃ- সারাদেশের নদ-নদী, সাগর, দেশজুড়ে, উপকূলজুড়ে ভরা ইলিশ মৌসুম থাকলেও কলাপাড়া-কুয়াকাটার ঝাউবন এলাকায় সমুদ্রে মাছ ধরতে না দেওয়ার অভিযোগে জেলে সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে সোমবার  কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সামনে খুটা জেলেরা বিক্ষোভ করে। বিক্ষোভ শেষে প্রেসক্লাবে এসে খুটা জেলে নৌকার ১৯ মাঝি, মাল্লারা সাংবাদিকদের কাছে জেলে সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগ তুলে ধরে। এসময় তারা সীমানা নির্ধারণের নামে অতিনিক্ত টাকা আদায়, সীমানা নির্ধারণ নিয়ে স্বজনপ্রীতি এবং জেলে সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে সমুদ্রে মাছ ধরতে না দেয়া সহ হয়রানীর অভিযোগ তুলে ধরে। ভূক্তভোগি জেলেরা আশারআলো জেলে ও মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির আওয়তায় গড়ে তোলা জেলে ইউনিট কমিটি বিলুপ্ত করার দাবী সহ দ্রুত সময়ে এ সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের দৃষ্টি আর্কষন করেন।

    জেলেদের সুত্রে জানা গেছে, জেলেদের সমন্বয়ে গঠিত আশারআলো জেলে সমবায় সমিতির মাধ্যমে কুয়াকাটা সৈকতের লেম্বুরবন হইতে গঙ্গামতি এলাকার খুটা জেলেদের সমুদ্রে মাছ ধরা সহ জেলেদের সমস্যা সমাধানে ও সুবিধার্থে ৬টি ইউনিট কমিটি গঠন করে দেয়া হয়। প্রতিটি ইউনিট কমিটির আওতায় ৭০ থেকে দেড় শতাধিক খুটা জেলে নৌকা রয়েছে। আশার আলো জেলে সমবায় সমিতি কর্তৃক গড়ে তোলা এসব ইউনিট কমিটি সমুদ্রে মাছধরার জন্য সীমানা নির্ধারণ, কোন জেলে সমুদ্রের কোন স্থানে মাছ শিকার করবে তা নির্ধারণ করে থাকে। এসব ইউনিট কমিটির সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক ও অন্যান্যদের বিরুদ্ধে জেলেদের কাছ থেকে সীমানা নির্ধারণের নামে নৌকা প্রতি ৩’শ-থেকে ৩হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়েছে এমন অভিযোগ করে জেলেরা।

    কুয়াকাটা পৌর এলাকার হোসেন পাড়া গ্রামের জেলে মো: মিলন মাঝি, নূর ছায়েদ মাঝি, নূর জামাল, সিদ্দিক, মিজানুর, মন্নান মোল্লা ১৯ খুটা জেলে নৌকার মাঝি ও মাল্লারা অভিযোগ করেন, এখন ভরা ইলিশ মৌসুম চলছে কিন্ত তারা এখনও সমুদ্রে জাল ফেলতে পারেনি। ৫নং জেলে ইউনিট কমিটির সভাপতি আব্দুর রব হাওলাদার, সাধারণ সম্পাদক মো: জাহাঙ্গীরসহ ইউনিট কমিটর নেতা স্বপন, আব্দুর রহমান (কালাম), মতি রহমান ও হালিম মাঝি চাঁদাবাজি, স্বজন প্রীতি ও সেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে তাদেরকে নানাভাবে হয়রানী করে আসছে।

    ভূক্তভোগি জেলেরা বলেন, আশার আলো জেলে সমিতি কর্তৃক নির্ধারণকৃত প্রতিটি খুটা জেলের জন্য ১৪০ হাত জায়গা ফাঁকা রেখে সমুদ্রে মাছধরার কথা থাকলেও সেখানে ৫নং ইউনিট কমিটির ৫জন নেতা ১ থেকে দেড় হাজার হাত জলসীমানা আটকে রেখে  মাছ শিকার করছে। নির্ধারণকৃত ১৪০ হাতের স্থলে জলসীমানার অতিরিক্ত জায়গা দখল করার কারণে তারা ১৯ নৌকার শতাধিক জেলে মৌসুমের অর্ধেক সময় পেরিয়ে গেলেও এখনও সমুদ্রে জাল ফেলতে পারেনি।

    এসব জেলেরা জাল খুটা ও নৌকা নিয়ে একেকজনে প্রায় ২-৩ লাখ টাকার মৎস্য সরঞ্জাম নিয়ে বেকার বসে আছে। আড়ৎদারদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা দাদন নিয়ে জাল নৌকা গড়ে তুললেও সমুদ্রে মাছ ধরতে না পেরে অমানবিক জীবনযাপন করছে এসব জেলে পরিবারগুলো। ক্ষমতার প্রভাব বিস্তার করে সংগঠনের সভাপতিসহ অন্যান্য নেতারা মাছ শিকার করে আসছে। ভূক্তভোগি জেলেরা  এসব ইউনিট কমিটি বিলুপ্তসহ সমুদ্রে অবাধ ও নিরাপদে মাছ শিকারের নিশ্চয়তা চেয়ে সংশ্লিষ্ঠ কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

    জেলেদের এসব অভিযোগের বিষয়ে আশারআলো জেলে সমবায়সমিতির সভাপতি মো: নিজাম শেখ বলেন, সমুদ্রে খুটা জেলেদের জন্য সীমানা নির্ধারণ পুর্বক ১৪০ হাত পরপর খুটা বসিয়ে জাল পাতার জন্য ইউনিট কমিটিকে বলে দেয়া হয়েছে। সীমানা নির্ধারণের সময় তৈল খরচ বাবদ প্রকার ভেদে ৩’শ থেকে ৭’শ টাকা ইউনিট কমিটি নিয়ে থাকে। জেলেদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক এ টাকা নেয়া হয়। এর পুরোটাই জেলেদের উন্নয়নে খরচ করা হয়। তিনি আরও বলেন, ১৯ জেলে এখনও সমুদ্রে জাল ফেলতে পারেনি তা তার জানা ছিল না। মাছধরা থেকে বঞ্চিত এসব জেলেদের সীমানা নির্ধারণ করে ২/১ দিনের মধ্যেই বিক্ষোভরত জেলেদের সমস্যার সমাধান করে দেয়ার আশ্বাস দেন।

    কুয়াকাটা পৌর মেয়র আ: বারেক মোল্লা জানান, সমুদ্রে নির্ধারিত জলসীমানার অতিরিক্ত জায়গা দখল করার বিষয়ে কয়েকজন জেলে তার কাছে অভিযোগ করেছে। সকল ইউনিট কমিটিসহ স্থানীয় সাবেক কাউন্সিলর আব্দুর রহিম হাওলাদারকে দ্রুত সমাধান করার জন্য বলে দিয়েছেন তিনি।

    প্রকাশিত: মঙ্গলবার ২৫, অগাস্ট ২০২০

    Post Top Ad