Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    চট্টগ্রামে হাসপাতাল ঘুরে ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল

    বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল

    চট্টগ্রামে হাসপাতাল ঘুরে ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। এমন অভিযোগ নিয়মিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গনমাধ্যমে আসছেই। 

    করোনায় আক্রান্ত রোগী ভর্তি না করার অভিযোগে বেসরকারি হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে প্রশাসন। এমন পরিস্থিতিতে আইসিইউ সেবাও বন্ধ রেখেছে বেশিরভাগ হাসপাতাল।

    মঙ্গলবার আইসিইউ না পেয়ে বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরে ঘুরে গাড়িতেই মৃত্যুবরণ করেন আওয়ামী লীগ নেতা শফিউল আলম ছগীর, বিএনপির সহ-সভাপতি কামাল উদ্দিন ও অন্তঃসত্বা মুক্তা।  

    বুধবার রাতে ন্যাশনাল হাসপাতাল থেকে ফিরিয়ে দেয়া হলে পথেই মৃতু হয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের চৌধুরীর বাবা জসিমউদ্দিনের। 


    নগরীর ৯০টি বেসরকারি হাসপাতালে ১১০টি আইসিইউ শয্যা থাকলেও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিদর্শনে গিয়ে নানা অজুহাতে বেশিরভাগ আইসিইউ সেবা বন্ধ রাখার চিত্র পায়।  

    করোনা উপসর্গ আছে এমন রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে না অধিকাংশ হাসপাতাল। রোগীদের চিকিৎসা না দিয়ে ফিরিয়ে দেয়া হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়ে  সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন "আমরা বলতে পারবো না যে, আমরা পুরোপুরি সফল হতে পেরেছি। তবে আগের চেয়ে এখন অভিযোগ অনেকটাই কম। মোবাইল টিম কাজ করবে। সেখনে জরিমানাসহ সকল প্রকার শাস্তি দিতে বাধ্য হবে সরকার।


    অসুস্থতা নিয়ে হাসপাতাল থেকে হাসপাতাল ছোটাছুটি এখন চট্টগ্রাম নগরীর নিত্যদিনের চিত্র। প্রতিদিনই এভাবে হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। এই অবস্থাতেও চিকিৎসা সংকট কাটানোর বিষয়ে কর্তৃপক্ষ কোন উদ্যোগ পর্যন্ত নিতে পারেনি। এই ধরনের ভোগান্তির শিকার হওয়া রোগীর স্বজনদের কেউ কেউ বলছেন, আইসিইউ নয় মূলত চিকিৎসার অভাবেই মারা গেছে তাদের স্বজনরা।


    প্রকাশিত: শনিবার, ১৩ জুন, ২০২০

    Post Top Ad