Header Ads

parkview
  • সর্বশেষ আপডেট

    সালথা'য় কোন ভাবেই মানা হচ্ছেনা সামাজিক দূরত্ব


    সালথা'য় কোন ভাবেই মানা হচ্ছেনা সামাজিক দূরত্ব

    সোহান উজ্জামান সুমন,ফরিদপুর:: বৈশ্বিক মহামারী (কোভিড-১৯) করোনাভাইরাস সংক্রমণ বিস্তার রোধের কারনে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে ফলে সারা দেশের ন্যায় রাজপথে জনসমাগম ও যানবাহন তেমন না থাকলেও আমাদের সালথার অলি-গলির চিত্র পুরোপুরি ভিন্ন। 

    এখানে কোন ভাবেই মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব’বজায়ের কোনো নির্দেশনা। সব বয়সি মানুষদের দেখা যাচ্ছে হাট বাজার মার্কেট শপিংমলে জটলা বেঁধে সব কেনাকাটায় ব্যস্ত।সালথা'র বিভিন্ন এলাকার অলিগলি ঘুরে এমন জটলার চিত্র দেখা যায়।

    কাঁচাবাজার, মাছের বাজার ঢোকার সময় দেখা যায় দীর্ঘ জনসমাগমের অরাঅণ্য, যা থাকে দুপুর এর পর পর্যন্ত। দুপুরের পর অবশ্য এখানকার বাজার মার্কেট গুলো অনেক ক্ষেত্রেই ফাঁকা হতে থাকে। কাঁচাবাজার থেকে সুরু করে বিভিন্ন মার্কেট শপিংমলগুলোর ক্রেতা-বিক্রেতা কেউই কেন জানি সরকারের দেয়া এই নিয়মগুলো মানতে পারছেন না। এসব জায়গা ঘুরে দেখা যায় ব্যাপক লোকের জনসমাগম, এখানে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার বিষয়টা কারো মধ্যেই দেখা যায় না।


    কিছু দোকানির সাথে কথা বলে জানা যায়, মানুষকে বলেও দূরে রাখা যায় না। অনেকে আবার উল্টো প্রশ্ন করেন, আল্লাহ আমাদের নিয়ে গেলে কেউ কি বাধা দিয়ে রাখতে পারবে, আমরা বাজার ঘাটে না আসলে না খেয়ে মরব নাকি।

    সালথার অন্যান্য এলাকাতেও একই ধরনের চিত্র দেখা যাচ্ছে। সশস্ত্র বাহিনী ও পুলিশের টহলের কারণে রোড গুলো অনেকটা ফাঁকা থাকলেও অলি-গলি হাট বাজার ঘাটে চলছে জনসমাগমের অধিক চলাফেরা।

    করোনাভাইরাসের কারনে সরকার জনসাধারণকে বার বার ঘরে থাকার নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন কিন্তু অধিকাংশ মানুষ এসব বিধি নিষেধ কোনভাবেই মানছেন না। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দেশে প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে। এমন অবস্থায় আপনার আমার সতর্কতাই পারে এই মরণব্যাধি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে আমাদেরকে মুক্ত রাখতে। আমরা যদি সরকারি বিধি নিষেধ গুলো না মেনে চলি, তাহলে সরকার কোনভাবেই এটাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না।


    উল্লেখ্য, সরকারিভাবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সবশেষ হিসেব অনুসারে, সারাদেশে করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত ২০,৯৯৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ৯৩০ জন যা এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ রেকর্ড । এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৩১৪ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায়ই মারা গেছেন ১৬ জন।

    করোনা ভাইরাস সংক্রমণের শুরুতে যদি সরকার হাত গুটিয়ে বসে থাকতো তাহলে এতদিনে করোনায় মোট রোগীর সংখ্যা ২০, হাজারের জায়গার ২০ লাখ ছাড়িয়ে যেত আমাদের দেশে। আলহামদুলিল্লাহ আমাদের সরকার চুপচাপ বসে থাকেনি বলেই আজ সংক্রমণের হার এখনও সরকারের নিয়ন্ত্রণে।

    এ ভাইরাস থেকে নিজেকে ও পরিবারকে এবং সমাজকে সুরক্ষিত রাখতে সবাইকে ঘরে থাকতে, অন্তত সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ বিশেষজ্ঞরা।

    দিগন্ত নিউজ ডেস্ক/কেএস

    প্রকাশিত: রবিবার, ১৭ মে, ২০২০

    Post Top Ad