• সর্বশেষ আপডেট

    জেঁকে বসেছে শীত, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬.১

     

    কুয়াশা কেটে গেলেও শৈত্যপ্রবাহ আর হিমেল হাওয়ায় বিপর্যস্ত জনজীবন। শুক্রবার সকাল ৯টায় কুড়িগ্রামের রাজারহাটে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৬ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা গত পাঁচ বছরে এ জেলায় সবচেয়ে কম। এদিকে প্রচন্ড ঠান্ডায় ব্যাহত হচ্ছে ইরি-বোরো চাষাবাদ। ফলে নষ্ট হচ্ছে রবিশস্য।

    কুয়াশা কেটে গেলেও বইছে হিমেল হাওয়া। প্রচন্ড ঠান্ডায় শীতের ভোগান্তি উত্তরাঞ্চলসহ সারা দেশে। মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বইছে এ অঞ্চলের কয়েকটি জেলার উপর দিয়ে। রংপুর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম কামরুল হাসান জানিয়েছেন এ অঞ্চলে আগামী ২ থেকে ৩ দিন এ অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে।



    সারাদেশে প্রায় ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা কমেছে। আজ শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ৬ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়াও গোপালগঞ্জ টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, মৌলভীবাজার, যশোর ও কুষ্টিয়া জেলাসহ এবং রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে এবং আরও এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে জানিয়ছে আবহাওয়া অফিস।

    এছাড়া দেশের ১৭ জেলার তাপমাত্রা এখন ১০ এর নিচে অবস্থান করছে। আর ১০ ডিগ্রির মধ্যে আছে আরো ৭ জেলার তাপমাত্রা।

    এদিকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি আর ঘন কুয়াশায় নাটোরে সরিষাসহ রবি ফসলের ক্ষতি হয়েছে। ঘন কুয়াশায় কুড়িগ্রামে আলু ও বোরো বীজতলার ক্ষতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

    যদিও নওগাঁর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামসুল ওয়াদুদ বলেছেন, শীতের প্রভাব দীর্ঘস্থায়ী না হলে রবিশস্যের তেমন ক্ষতি হবে না।

    তবে তীব্র শীতের কারনে বিলম্বিত হচ্ছে চলতি মৌসুমের ইরি-বোরো চাষাবাদ।

    প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারি ২০২২

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad